চাঁদাবাজি

সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজি

প্রকাশিত: ৮:২৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১, ২০২০
ভুয়া সংবাদিক আব্দুস সাত্তার

আঞ্চলিক প্রতিনিধি কুড়িগ্রাম থেকে
কথিত গণমাধ্যম ‘দৈনিক আনন্দ বাজার’- এর রাজিবপুর উপজেলার সংবাদদাতা হিসেবে পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন অফিস ,বেকারি, মিষ্টির দোকান ও ফ্যাক্টরি মালিকদের ভয় দেখিয়ে তাদের কাছ থেকে মোটা অংকের চাঁদা আদায় করেন আব্দুস সাত্তার

কথিত গণমাধ্যম ‘ডেইলি আনন্দ বাজার’- এর রাজিবপুর উপজেলার সংবাদদাতা হিসেবে পরিচয় দিয়ে উপজেলার বিভিন্ন অফিস, বেকারি, মিষ্টির দোকান মুদির দোকান সহ বিভিন্ন মালিকদের মিথ্যা ভয় দেখিয়ে তাদের কাছ থেকে মোটা অংকের চাঁদা আদায় করতেন আব্দুস ছাত্তার। বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে চাকরি পাইয়ে দেয়ার নাম করে এলাকার বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা গ্রহণ করেন। বুধবার সকাল ১১.০০ ঘটিকায় উপজেলার বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড (বিআরডিবি) এর প্রোডাকশন ম্যানেজার মোঃ নাজির হোসেন উপজেলার নিকটস্থ চায়ের দোকানে চা খেতে গেলে সেখানে গিয়ে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে চাঁদা দাবি করেন আব্দুস সাত্তার । উত্তরে প্রোডাকশন ম্যানেজার মোঃ নাজির হোসেন বলেন আমি কোন খারাপ কাজ বা দূর্নীতি করিনি, আপনাকে কেন চাঁদা দিবো? তখন আব্দুস সাত্তার বলেন আমি উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমার উপজেলায় চাকুরী করতে হলে আমাকে চাঁদা দিয়ে চাকুরী করতে হবে এই সময় অনলাইন নিউজ পোর্টাল ইংলিশ বাংলা নিউজ ডটকম এর বিশেষ সংবাদদাতা মোবাইলে ভিডিও ধারণ করলে তার মোবাইল টি হাত থেকে কেড়ে নিয়ে জনসমক্ষে ভেঙ্গে ফেলেন আব্দুস সাত্তার। এমনতো অবস্থায় উপস্থিত জনগণের রোষানলে পড়েন আব্দুস সাত্তার। পরে কৌশলে’ সেখান থেকে পালিয়ে যান। স্থানীয় উপস্থিত জনতা বলেন অতীতেও চাঁদা দাবি করে গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছেন আব্দুস সাত্তার। এই সময় উপস্থিত ছিলেন সানোয়ার হোসেন (৪৫) বাদশা মিয়া (৪০) সহ আরো অনেকে।


এই বিষয়টি মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে রাজিবপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ সফিউল আলম বলেন সে উপজেলা আওয়ামীলীগের কেউ না। সে কোন সাংবাদিক না। সে সম্পূর্ণ মিথ্যা কথা বলে চাঁদাবাজি করেন। আব্দুস সাত্তার কুড়িগ্রাম জেলার রাজিপুর উপজেলার রাজিবপুর ইউনিয়নের শিবের ডাঙ্গির গ্রামের মৃত আবুল তাহেরের ছেলে।