ওয়ানটাইম প্লাস্টিক পণ্য ব্যবহার বন্ধের নির্দেশ হাইকোর্টের

প্রকাশিত: ১:৫৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৬, ২০২০
ওয়ানটাইম প্লাস্টিক পণ্য

দেশের হোটেল রেস্তোরাঁসহ সর্বত্র ব্যবহার হওয়া ‘ওয়ান টাইম প্লাস্টিক’ পণ্য ব্যবহার বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এক বছরের মধ্যে এসব পণ্য ব্যবহার বন্ধে ব্যবস্থা নিতে বলেছেন আদালত।

এ সংক্রান্ত এক রিটের শুনানি নিয়ে আজ সোমবার (৬ জানুয়ারি) হাইকোর্টের বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী অ্যাডভোকেট সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান।

এর আগে, পরিবেশ আইনবিদ সমিতি- বেলাসহ ১১ সংগঠন এ বিষয়ে নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করেন।

প্রসঙ্গত, প্লাস্টিকের ওয়ান টাইম গ্লাস-প্লেট ব্যবহারে হতে পারে ক্যান্সার। এর মাধ্যমে শরীরের ক্ষতিকর রাসায়নিক প্রবেশ করে কমায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে হার্ট, কিডনি, লিভার। বাধাগ্রস্ত হতে পারে হরমোনের স্বাভাবিক কার্যক্রম। পরিবেশ ও স্বাস্থ্যঝুঁকি বিবেচনার বিকল্প পাত্র ব্যবহারের পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

আধুনিক জীবনে নানা অনুষ্ঠানসহ অতিথি আপ্যায়নে হরহামেশা ব্যবহার হচ্ছে ওয়ান টাইম পাত্র। সিরামিকস-মেলামাইন হটিয়ে দিয়ে কম খরচ ও সহজলভ্য হওয়ায় পছন্দের তালিকার প্রথমে উঠে এসেছে প্লাস্টিকের এই কাপ-প্লেট-গ্লাস। তবে এর ক্ষতির দিকটি নিয়ে ধারণা নেই অনেকেরই।

চিকিৎসক ও রসায়নবিদরা বলছেন, এসব পাত্র তৈরিতে ব্যবহার হয় বিসফেনল-এ ও নানা রাসায়নিক। আর এসব খাবারের সঙ্গে শরীরে প্রবেশ করে হরমোনের ভারসাম্য নষ্টের পাশাপাশি কারণ হতে পারে ক্যান্সারেরও।

শুধু এই রাসায়নিকই নয়, এসব পাত্র তৈরিতে রাজধানীর ডাস্টবিন থেকে যেসব প্লাস্টিক পণ্য নেয়া হয় তার মধ্যে আছে হাসপাতাল বর্জ্যও। পুরান ঢাকার ইসলামবাগ,বুড়িগঙ্গা পাড়ের নানাকারখানায় রিসাইক্লিং করা হয় এসব।

এনভায়রন্টমেন্ট সোস্যাল ডেভেলপমেন্ট অরগানাইজেশন-এসডো-র সাম্প্রতিক জরিপ বলছে, দেশে মাসে বেচাকেনা হয় দুইশ পঞ্চাশ টন ওয়ান টাইম পাত্র। আর এসব পাত্র সবচেয়ে বেশি ক্ষতির কারণ হয় গরম খাবারের সংস্পর্শে এলে।