একজন সৎ পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ ১৮, লালমনিরহাট-০৩ (লালমনিরহাট সদর) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য জি এম কাদের

প্রকাশিত: ১০:০৮ পূর্বাহ্ণ, মে ১, ২০২০
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের

মোঃ মাসুদ রানা রাশেদ, লালমনিরহাট: গোলাম মোহাম্মদ কাদের (জিএম কাদের নামে অধিক পরিচিত) একজন বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ ও সাবেক মন্ত্রী। তিনি সপ্তম, অষ্টম, নবম ও একাদশ জাতীয় সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। কাদের লালমনিরহাট-০৩ ও রংপুর-০৩ আসন থেকে জাতীয় পার্টির মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছিলেন। এছাড়া তিনি জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় উপনেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর তিনি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে নিযুক্ত হন।
গোলাম মোহাম্মদ কাদের
বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী
কাজের মেয়াদঃ ৭ ডিসেম্বর ২০১১-১১ জানুয়ারি ২০১৪।
পূর্বসূরীঃ ফারুক খান।
উত্তরসূরীঃ তোফায়েল আহমেদ।
বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী
কাজের মেয়াদঃ ৭ জানুয়ারি ২০০৯-৭ ডিসেম্বর ২০১১।
পূর্বসূরীঃ মাহবুব জামিল।
উত্তরসূরীঃ ফারুক খান।
লালমনিরহাট-৩ আসন আসনের সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদঃ ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮-বর্তমান।
পূর্বসূরীঃ আবু সালেহ মোহাম্মদ সাঈদ।
কাজের মেয়াদঃ ২৯ ডিসেম্বর ২০০৮-১১ জানুয়ারি ২০১৪।
পূর্বসূরীঃ জিএম কাদের।
উত্তরসূরীঃ আবু সালেহ মোহাম্মদ সাঈদ।
কাজের মেয়াদঃ ১২ জুন ১৯৯৬-১ অক্টোবর ২০০১।
পূর্বসূরীঃ রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ।
উত্তরসূরীঃ আসাদুল হাবিব দুলু।
রংপুর-৩ আসন আসনের সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদঃ ১ অক্টোবর ২০০১-অক্টোবর ২০০৬।
পূর্বসূরীঃ হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ।
উত্তরসূরীঃ হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ।
ব্যক্তিগত বিবরণঃ জন্ম
২৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৮। (বয়স- ৭২)
নাগরিকত্বঃ পাকিস্তান (১৯৭১ সালের পূর্বে)
বাংলাদেশ।
জাতীয়তাঃ বাংলাদেশি।
রাজনৈতিক দলঃ জাতীয় পার্টি (এরশাদ)।
পেশাঃ রাজনীতিবিদ।
প্রারম্ভিক জীবনঃ জিএম কাদের ২৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৮ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মকবুল হোসেন ও মাতার নাম মজিদা খাতুন। শিক্ষাজীবনে কাদের মেকানিক্যালে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। শিক্ষাজীবন শেষে তিনি নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে মেকানিক্যাল প্রকৌশলী হিসেবে যোগদানের মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন। পরবর্তীতে বাংলাদেশ টোবাকো কোম্পানি, ইরাকের কৃষি মন্ত্রণালয় ও যমুনা তেল কোম্পানিতে চাকুরী করেন। সবশেষ বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনে পরিকল্পনা ও অপারেশন্স পরিচালক থাকাকালীন চাকুরী থেকে পদত্যাগ করে রাজনীতিতে যুক্ত হন।
রাজনৈতিক জীবনঃ রাজনৈতিক জীবনে জিএম কাদের জাতীয় পার্টিতে যোগদান করেন এবং দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য হন। পরবর্তীতে লালমনিরহাট-০৩ আসন থেকে জাতীয় পার্টির মনোনয়নে জুন ১৯৯৬ সালে সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রথমবারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০১ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি রংপুর-০৩ আসন থেকে নির্বাচন করে সংসদ সদস্য হন। ২০০৮ সালে নবম ও ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পুনরায় লালমনিরহাট-০৩ আসন থেকে নির্বাচন করে জয়ী হন। তবে, ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে নির্বাচন থেকে বিরত থাকেন।
২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে কাদের ৭ জানুয়ারি ২০০৯ তারিখে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পান। ৭ ডিসেম্বর ২০১১ সালে তাকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয় এবং ১১ জানুয়ারি ২০১৪ সাল পর্যন্ত তিনি এ দায়িত্ব পালন করেন।
হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ জীবিত থাকাকালীন তিনি জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। শারীরিক অসুস্থতার দরুন ২০১৯ সালের ৫ মে তাকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা করেন হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ।হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর তিনি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে নিযুক্ত হন।
ব্যক্তিগত ও পারিবারিক জীবনঃ জিএম কাদেরে বড় ভাই সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। এরশাদের স্ত্রী রওশন এরশাদ ছিলেন দশম জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমানে জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান। এরশাদ ও কাদেরের বোন মেরিনা রহমান সাবেক সংসদ সদস্য, মেরিনার ছেলে আহসান আদেলুর রহমান নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য। মেরিনার মেয়ে জেবুন্নেসা রহমান জিয়া উদ্দীন আহমেদ বাবলুর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।
১৮, লালমনিরহাট-০৩ (লালমনিরহাট সদর) সংসদীয় আসনের নির্বাচনে জি এম কাদের লাঙ্গল প্রতীকে ১লক্ষ ১৫হাজার ৪৩টি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

লেখকঃ মোঃ মাসুদ রানা রাশেদ, সাংবাদিক লালমনিরহাট। মোবাঃ ০১৭৩৫৪৩৮৯৯৯