লালমনিরহাট

রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠক অ্যাড. আশরাফ হোসেন বাদল

প্রকাশিত: ৯:৩৬ অপরাহ্ণ, মে ৪, ২০২০
অ্যাড. আশরাফ হোসেন বাদল

মোঃ মাসুদ রানা রাশেদ, লালমনিরহাট: অ্যাড. আশরাফ হোসেন বাদল। পিতাঃ মরহুম আফজাল হোসেন। স্ত্রীঃ মোছাঃ মেহেরুন নাহার মেরী (জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান)। ১ছেলে, ১মেয়ে সন্তানের জনক। তাঁর পরিবার লালমনিরহাট পৌরসভার নর্থ বেঙ্গল মোড় ডাক বাংলা রোডস্থ স্থায়ী ভাবে বসবাস করছেন। পেশাঃ আইন ব্যবসা। পরিচিতিঃ রাজনৈতিক ব্যক্তি, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠক এবং কবি হিসেবে। ১৯৭৯ সালে থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে রাজনৈতিক নেতৃত্বের বিকাশ। পরবর্তীতে ছাত্রলীগের সভাপতি। কেন্দ্রীয় ছাত্র রাজনীতিতে ২বছর ৮৯-৯০ সাল। ১৯৮৬ সালে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন পদক গ্রহণ। জেলা যুবলীগের আহবায়ক ১৯৯২ সাল। ২বার জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক। এরপর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। বর্তমানে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। ২০০১ সালে বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে লালমনিরহাটে প্রথম রাজনৈতিক মামলায় অ্যাড. আশরাফ হোসেন বাদল এবং অ্যাড. মতিয়ার রহমান-এঁর বিরুদ্ধে মামলা। বিভিন্ন সময়ে রাজনৈতিক হামলা ও নির্যাতনের শিকার। আওয়ামী লীগ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের অত্যন্ত প্রিয় ব্যক্তি হিসাবে এবং সমাজের প্রত্যেক শ্রেণী-পেশার মানুষের কাছে সমান প্রিয় ও আস্থাশীল। রাজনীতির পাশাপাশি শৈশব থেকে সৃজনশীল কর্মকান্ডে জড়িত। শিশু কিশোর সংগঠন কচি-কাচার মেলা, মুকুল ফৌজ, সূর্য সেনা-র সাথে জড়িত ছিলেন। বিভিন্ন পর্যায়ের সাহিত্য, সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। ১৯৯০ সালে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন শিশু কিশোর সংগঠন পলাশ। প্রতিষ্ঠাতা- দেশরত্ম শিশু কিশোর মেলার। প্রতিবছর নতুন প্রজন্মের মেধা বিকাশে আয়োজন করে থাকেন সাধারণ জ্ঞান প্রতিযোগিতা। ফটোগ্রাফির মাধ্যমে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ছবি তুলে আনা প্রতিযোগিতার মাধ্যমে নতুন প্রজন্মকে পৌঁছে দিয়েছেন মহান মুক্তিযুদ্ধের নায়কদের। নতুন প্রজন্মকে দিয়ে ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর উদ্দেশ্যে লিখিয়েছেন চিঠি। সেই চিঠি বঙ্গবন্ধুর কাছে পাঠানোর জন্য গ্যাস বেলুনে ছেড়ে দেয়া হয়েছে আকাশের ঠিকানায়। তাঁর দর্শন যে সমাজ নারীর মর্যাদা ও শিশুদের ভালোবাসা দিতে জানেনা সে সমাজে অবক্ষয় নেমে আসতে বাধ্য।
লেখক ও সাংবাদিক লালমনিরহাট। মোবা: ০১৭৩৫৫৩৮৯৯৯