মৃদুভাষী, নিরহঙ্কারী ডা. জাকিউল ইসলাম ফারুকী রুচি ও ব্যক্তিত্বের এক অনন্য উদাহরণ

প্রকাশিত: ১:৩৮ অপরাহ্ণ, মে ৮, ২০২০
ডা. জাকিউল ইসলাম ফারুকী

মোঃ মাসুদ রানা রাশেদ, লালমনিরহাট: ডা. জাকিউল ইসলাম ফারুকীর জন্ম ৯ নভেম্বর, ১৯৫৪ খ্রিস্টাব্দে বগুড়া জেলার সুলতানগঞ্জ পাড়ায় নানাবাড়ীতে। তাঁর বাবার নাম মরহুম ডা. ওমর আলী ও মাতার নাম মরহুমা নুরুন নাহার। তাঁর শৈশব কেটেছে উত্তর জনপদের তিস্তা বিধৌত নিসর্গের সমুজ্জ্বল সুবাতাসে পরিবেষ্টিত শহর লালমনিরহাটে। তিনি পড়াশোনা করেছেন সৈয়দপুর রেলওয়ে প্রাইমারী স্কুল, লালমনিরহাট মডেল স্কুল, পদ্মাপাড়ের রাজশাহী ক্যাডেট কলেজ, ঢাকা কলেজ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ, পিজি হাসপাতাল, কুমুদিনি হাসপাতাল, হলিফ্যামিলি হাসপাতাল, চাঁদপুর বিএসএসবি চক্ষু হাসপাতাল। ১৯৯৯ সালে আরডিআরএস বাংলাদেশ নামে একটি বেসরকারী সংস্থায় চক্ষু বিশেষজ্ঞ পদে যোগদেবার পর শূন্য থেকে গড়ে তুলেছেন চক্ষু হাসপাতাল এবং দৃষ্টি প্রতিবন্ধী পুনর্বাসন কেন্দ্র। এরপর আরডিআরএস বাংলাদেশ এর আই কেয়ার প্রজেক্টের কো-অর্ডনেটর পদে কর্মরত ছিলেন। সহধর্মিনী ডা. সেলিমা রহমান। কন্যা ডা. সারাহ মারিয়াম দোয়েল। পুত্র শায়েক রেজওয়ান।
তিনি স্থানীয় সাপ্তাহিক আলোর মনি ও সাপ্তাহিক লালমনিরহাট বার্তা পত্রিকায় নিয়মিত কলাম লিখে আসছেন। তিনি রঙ্গপুর গবেষণা পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক, জাতীয় কবিতা পরিষদ লালমনিরহাটের সাবেক সভাপতি, স্বর্ণামতি নন্দিনী সাহিত্য ও পাঠচক্র লালমনিরহাট জেলা শাখার সাবেক সভাপতি, মাসিক সাহিত্য পত্রিকা ‘রোদ্দুর’-এর উপদেষ্টা সম্পাদক, সাহিত্য পত্রিকা ‘বৃষ্টি ঝরা মেঘ’-এর প্রকাশক ও সম্পাদক ছিলেন। ডায়াবেটিক সমিতি লালমনিরহাট এর সাবেক সভাপতি। কাব্যগ্রন্থ গুলো হচ্ছে- কবিতা সমগ্র-১, কবিতা সমগ্র-২, সোনালী এখানে দুঃখ নেই, বাথানের মহিষেরা, প্রথমার চাঁদ, কবিতার ছায়া, নির্বাচিত কবিতা, তোমার চোখে জল প্রভৃতি। যৌথ প্রকাশনা- শিক্ষানুরাগী শ্রীশ চন্দ্র সান্যাল। গবেষণা মূলক বই- ‘রঙ্গপুরের বরেণ্য ব্যক্তিত্ব’, ‘মুক্তিযুদ্ধে রঙ্গপুর’ সম্পাদনা পরিষদের সদস্য।
লেখক: সাংবাদিক ও সম্পাদক, সাপ্তাহিক আলোর মনি, লালমনিরহাট। মোবা: ০১৭৩৫৪৩৮৯৯৯