করোনা ভাইরাস নিয়ে ফেসবুকে অপপ্রচার পাটগ্রামে কলেজ শিক্ষকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা, গ্রেফতার

প্রকাশিত: ৪:৫১ অপরাহ্ণ, মে ১৩, ২০২০

মোঃ মাসুদ রানা রাশেদ, লালমনিরহাট: লালমনিরহাটের পাটগ্রাম আদর্শ ডিগ্রি কলেজের রসায়ন বিষয়ের সহকারী অধ্যাপক শরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে পুলিশ মামলা দায়ের করেছে। ওই মামলায় রাতেই এজাহার নামীয় ওই শিক্ষককে পাটগ্রাম পৌর শহরের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের মির্জারকোর্ট এলাকার বাসা থেকে গ্রেফতার করেছে।
মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টা ৫মিনিটে পাটগ্রাম থানার এসআই আশরাফুল ইসলাম বাদী হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫(২) ও ৩১(২) ধারায় কলেজ শিক্ষক শরিফুল ইসলামকে আসামী করে মামলাটি দায়ের করেন। পাটগ্রাম থানার মামলা নম্বর ১১(১৩মে, ২০২০)। এটি প্রথম মামলা।
এসব তথ্য জানান ওসি সুমন কুমার মোহন্ত।
ওই শিক্ষকের স্থায়ী ঠিকানা রংপুরের পীরগঞ্জের ভেন্ডাবাড়ী পলাশী এলাকার খায়রুল ইসলামের ছেলে। তিনি পাটগ্রাম আদর্শ ডিগ্রি কলেজে নিয়োগে পর হতে প্রায় ১৪ বা ১৬বছর থেকে চাকুরি জনিত কারণে পাটগ্রামে শিক্ষতা করতেন।
মামলার বিবরণে ও পুলিশ সুত্রে জানা যায়, গত ১১ মে সকাল১০টা ১৯মিনিটে মোঃ শফিকুল ইসলাম তার নিজের ফেসবুকের ওয়ালে করোনা ভাইরাস নিয়ে একটি বিতর্কিত স্ট্যাটাস দেয়। ওই স্ট্যাটাসে তিনি লিখেন, ওপেন চ্যালেঞ্জ টু এভরিবডিঃ কোলাকুলি করা, মোসাফা করা থেকে দুরে থাকা, তিনফুট দুরত্বে অর্থাৎ অসামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে চলা, এসমস্ত কথা কোরআন, ইসলাম ও ঈমান আমলের উপর বড় আঘাত হেনেছে। ঘনঘন স্যানিটাইজার ব্যবহার করা, মাস্ক ব্যবহার, জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাসায় থাকুন, নিরাপদ থাকুন, সুস্থ থাকুন। ভাইরাস প্রতিরোধে এই সমস্ত কথা ৯৯.৫০% ভুয়া। এ্যানি বডি ওফ বাংলাদেশ এ সমস্ত কথা সত্য প্রমানিত করতে পারলে দুইলাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিব, সত্য প্রমাণ করতে ব্যর্থ হলে সে দুইলাখ ক্ষতি পূরণ দিবে ও সরকার পক্ষ থেকে তার বিরুদ্ধে রাস্ট্রদ্রোহী মামলা করতে হবে। কেমিস্ট মোহ শরিফুল ইসলাম। মোবাইল-০১৭৪৪৪-৫৪৪৬৬, ০১৩১৫-১২৭৬৬৬/ আইডি নং ৫২২৭০০৮৮৩৯২০।’ শুধু তাই নয়, তার ফেসবুকে অসংখ্য অপপ্রচার করা হয়েছে এবং ধর্মান্ধ স্ট্যাটাস দেওয়া হয়েছে।
পাটগ্রাম থানার ওসি সুমন কুমার মোহন্ত মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ওই শিক্ষক শরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে সরকারের প্রচলিত অাইনকে অস্বীকার ও করোনা ভাইরাস নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অপপ্রচার করে স্ট্যাটাস দিয়ে সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করে যাচ্ছিলেন। তাকে সতর্ক করার পরও তিনি উল্টো ধর্মান্ধ হয়ে ওপেন চ্যালেঞ্জ করে বাজি ধরে ফের ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয় এবং অন্যান্যদের বিতর্ক করে আসছিল। যা নিয়ে স্থানীয় পর্যায়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে। বিষয়টি প্রশাসনের নজড়ে আসে। এরপরে আমরা অধিকতর তদন্ত করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা রেকর্ড করে ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছি। বুধবার দুপুরে তাকে লালমনিরহাট আদালতে সোপর্দ করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আবেদন করা হবে।
পাটগ্রাম আদর্শ ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ শাহ নূর উন নবী কামাল বলেন, কেউ যদি ব্যক্তিগত অপরাধ করে থাকে এই জন্য প্রতিষ্ঠান কোনো দায় নেবে না। রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শরিফুল ইসলামক যদি নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে না পারেন। সেক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠান বিধি মোতাবেক তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবে। যেহেতু বিষয়টি প্রতিষ্ঠানের বাইরের স্পর্কাতর ঘটনা। এখানে প্রতিষ্ঠানের কিছু করনীয় নেই।