করতোয়া এক্সপ্রেসকে বুড়িমারী-ঢাকা ও লালমনিরহাট-এনজিপি (শিলিগুড়ি) আন্তদেশীয় ট্রেন চালুর দাবী

প্রকাশিত: ৫:৩৪ অপরাহ্ণ, মে ১৩, ২০২০

মোঃ মাসুদ রানা রাশেদ, লালমনিরহাট: লালমনিরহাট-ঢাকা একটি রাত্রিকালীন আন্তনগর ট্রেন চালুর দাবী এলাকাবাসীর অনেক দিনের। ইতিমধ্যে অনেক অর্থ ব্যয়ে লালমনিরহাট-বুড়িমারী প্রায় ৯০কিলোমিটার রেল লাইন মেরামত করা হয়েছে এবং সান্তাহার থেকে বুড়িমারী পর্যন্ত “করতোয়া এক্সপ্রেস” নামে দূর পাল্লার একটি আন্তনগর ট্রেন বর্তমানে চালু হয়েছে। নতুন ট্রেন চালু করা সম্ভব না হলে এই আন্তনগর ট্রেনটিকে সান্তাহার থেকে ঢাকা পর্যন্ত চালু করলেই অতি সহজে উক্ত দাবী পূরণ করা সম্ভব। সেই সাথে বর্তমানে চালু লালমনিরহাট-ঢাকা “লালমনি এক্সপ্রেস” ট্রেনটি লালমনিরহাট থেকে না ছেড়ে বুড়িমারী থেকে ছাড়লেই পঞ্চগড়ের মত বুড়িমারী-ঢাকা রুটে ২টি ট্রেন অতিসহজেই দিনে ও রাতে চলাচল করতে পারে। রেল বিভাগ গত ঈদে লালমনিরহাট-ঢাকা একজোড়া স্পেশাল ট্রেন চালু করেছিল মাত্র ১৫দিনের জন্য যা এখন বন্ধ রয়েছে। “করিডোর এক্সপ্রেস” নামে একটা নতুন ট্রেন এই রুটে চালানোর জন্য পরিকল্পনা রেল বিভাগের রয়েছে। আমরা এর দ্রুত বাস্তবায়ন দেখতে চাই। ইতিমধ্যে ভারত-বাংলাদেশের সাথে যাতায়াত ও পণ্য পরিবহনের জন্য রেল রুটকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। এর নির্দেশন হিসাবে ঢাকা-কলকাতা মৈত্রী এক্সপ্রেস, খুলনা-কলকাতা বন্ধন এক্সপ্রেস ও রাজশাহী-মালদা (প্রস্তাবিত) ট্রেন সার্ভিস ইতিমধ্যে চালু হয়েছে। চিলাহাটি-হলদিবাড়ী, বিরল-রাধিকাপুরসহ দেশের অন্যান্য রেল রুটের পণ্য পরিবহন চালু আছে। অনুরূপভাবে উত্তরবঙ্গ লালমনিরহাট থেকে এনজিপি (শিলিগুড়ি) ভারত আন্তদেশীয় ট্রেন ও পণ্য পরিবহনের জন্য মালগাড়ি চালানো রেল সেবায় সম্ভাবনার দ্বার খুলে দেবে। ভারতের সাথে অপর একটি গুরুত্বপূর্ণ রেল রুট চালু করা সম্ভব হবে। বুড়িমারী (বাংলাদেশ)-চ্যাংড়াবান্ধা (ভারত) মাত্র ১কিলোমিটার রেললাইন স্থাপন করলেই ভারতের সাথে একটি নতুন রেল রুট চালু করা সম্ভব হবে। এর জন্য কাউনিয়া-বুড়িমারী বর্তমান মিটার গেজকে ডুয়েল গেজে রূপান্তরিত এবং মেয়াদ উত্তীর্ণ তিস্তা রেল সেতু পুনঃনির্মাণ করতে হবে। এতে ভারতের সঙ্গে রেল ট্রানজিট স্থাপন করা হবে ও প্রস্তাবিত পার্বতীপুর-কাউনিয়া ডুয়েল গেজ নির্মাণ ফলপ্রসূ হবে। এই রুটে রেল বিভাগ সর্বোচ্চ আয় করতে সক্ষম হবে। বুড়িমারী দেশের ৩য় বৃহত্তম স্থল বন্দর ও ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট। এই রুটে ভারত, নেপাল, ভূটানে আমদানি-রপ্তানি পণ্য পরিবহন ও শত শত যাত্রী প্রতিদিন যাতায়াত করছে। এই পরিবহন ব্যবস্থা সম্পূর্ণ রূপে সড়ক পরিবহনের উপর সম্পূর্ণ নির্ভরশীল। যাহা ঝুঁকিপূর্ণ ও অনিরাপদ। (আগামী পর্বে: রেলওয়ে আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন।)
লেখক: সাংবাদিক ও সম্পাদক, সাপ্তাহিক আলোর মনি, লালমনিরহাট। মোবা: ০১৭৩৫৪৩৮৯৯৯