কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা রাজবাড়ীর পাংশায় বদলীর ২দিন পর ধরা পরে করোনা পজিটিভ

প্রকাশিত: ১২:১৪ অপরাহ্ণ, মে ২৩, ২০২০

মোঃ মাসুদ রানা রাশেদ, লালমনিরহাট: এবার লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ জিয়ারুল হাসান ২দিন আগে ঢাকা বিভাগের রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলায় বদলী হয়ে গেছেন। আজ শুক্রবার ২৩ মে রাত ৮টায় তার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসে পজিটিভ। এই ঘটনায় কালীগঞ্জ স্বাস্থ্য বিভাগে ও প্রশাসনে করোনা ভাইরাস সংক্রামণ ভীতি দেখা দিয়েছে। তার সংস্পর্সে আসা সকল স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারী, পরিবারের সদস্য ও ঢাকায় নিয়ে যাওয়া মাইক্রোবাসের চালকের নমূনা সংগ্রহ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত চিকিৎসক পরিবারের সদস্যসহ ঢাকায় নিজবাসায় আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
জানা গেছে, কয়েকদিন আগে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা জনৈক করোনা রোগীর চিকিৎসা করতে গিয়ে তার সংস্পর্সে আসেন। এর মধ্যে হঠাৎ তার বদলীর আদেশ আসে। তাই গত ১৯ মে তার নমূনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য রংপুরে পাঠানো হয়। এর মধ্যে গত ২০ মে ওই চিকিৎসকের স্ত্রী ও ২কন্যাকে একটি মাইক্রোবাস ভাড়া করে পাংশায় তার নতুন কর্মস্থলে চলে যান। সেখানে তিনি যোগদান করে অফিস করেছেন কিনা বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে আজ শুক্রবার ২৩ মে রাত ৮টায় লালমনিরহাট সিভিল সার্জন কার্যালয়ে করোনা পরীক্ষায় রিপোর্ট এলে ওই কর্মকর্তার করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। বিষয়টি তাৎক্ষনিক ঢাকায় স্বাস্থ্য বিভাগকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে। এদিকে এই রিপোর্ট প্রকাশ হওয়ার পর কালীগঞ্জ স্বাস্থ্য বিভাগ ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত স্বাস্থ্য কর্মী ও চিকিৎসকদের মধ্যে করোনা সংক্রামণের আতঙ্ক রিবাজ করছে। এদিকে তিনি স্থানীয় প্রশাসনের সাথে কোন বৈঠক করেছেন কিনা। তিনি সরকারি দায়িত্বের পাশাপাশি কোথাও চেম্বারের রোগী দেখেছেন কিনা খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে।
লালমনিরহাট সিভিল সার্জন ডাঃ নির্মলেন্দু রায় সাংবাদিকদের জানান, তার সংস্পর্সে আসা স্ত্রী, ২কন্যা, মাইক্রোচালককে প্রাতিষ্ঠানিক হোম কোয়ারাইন্টেয়ে নেয়া হয়েছে। তাদের নমূনা সংগ্রহ করে পরীক্ষায় পাঠানো হবে। এছাড়াও কালীগঞ্জ স্বাস্থ্য বিভাগের চিকিৎসক, স্বাস্থ্য কর্মীরা যারা তার সংস্পর্সে এসেছে তাদের নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হবে। চিকিৎসক ও তার পরিবার নতুন কর্মস্থলে নিজ উদ্যোগে নিজবাসায় আইসোলিশনে থেকে চিকিৎসা চলছে।