ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের সময় দুষ্কৃতিকারী গ্রেপ্তার।’

প্রকাশিত: ৬:১৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২, ২০২০

পাবনা প্রতিনিধি: গত সেপ্টেম্বরের ১ তারিখে খুলনা থেকে চিলাহাটি গামী পার্সেল এক্সপ্রেস ট্রেনটি বেজেরডাঙ্গা স্টেশনে প্রবেশের প্রাক্কালে কতিপয় দুষ্কৃতিকারী ট্রেন কে লক্ষ্য করে এলোপাথাড়ি পাথর ছুড়তে থাকে। ট্রেনের গতি কম থাকায় ট্রেনে কর্তব্যরত পরিচালক শফিউল আজম,নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য আলামিন, বেজেরডাঙ্গা স্টেশনের স্টেশন মাস্টার ইয়াসির আরাফাত দৌড়ে গিয়ে প্রেমনাথ কুন্ডু(১৬) নামে একটি ছেলেকে আটক করতে সক্ষম হন। তাকে আটক করে খুলনা রেলওয়ে থানায় সোপর্দ করা হয়। পরে যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নন এফ আই আর প্রসিকিউশন নং ১/২০ তারিখ ১-০৯-২০২০ এর মাধ্যমে ১৮৯০ এর ১২১ ধারায় আদালতে সোপর্দ করা হয়।
দীর্ঘ দিন ধরে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটলেও ট্রেনের গতি বেশি থাকায় পাথর নিক্ষেপ কারী কে আটক করা সম্ভব হয় না। বিভিন্ন সময়ে পাথর নিক্ষেপের ফলে ট্রেনের দরজা, জানালার গ্লাস ভেঙ্গে যায় যাত্রী এবং ট্রেনের স্টাফগণ হতাহত হন। ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ বন্ধের জন্য রেলওয়ের পক্ষ থেকেবিভিন্ন গণমাধ্যমে ব্যাপক প্রচারণা চলমান রয়েছে।
২ বছর আগে রেলওয়ের ট্রাফিক ইনস্পেক্টর সিকদার বায়েজিদ পাথরের আঘাতে মারাত্মকভাবে জখম হন এবং পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। চট্টগ্রামে প্রীতি দাস নামে একজন প্রকৌশলীও ট্রেনে ছোঁড়া পাথরের আঘাতে মৃত্যুবরণ করেন।