হাতিবান্ধায় প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে মিথ্যা মামলা

প্রকাশিত: ৩:৪৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২০

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাটের হাতিবান্ধা উপজেলার ভেলাগুড়ি ইউনিয়নে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনাস্থল ঘুরে স্থানীয় এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, ৬/৭ মাস আগে দক্ষিণ জাওরানীর ৯ নং ওয়ার্ডে একটি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটে। সেখানে একজনের দাঁত পরা সহ বাকি দুই আরোহীর হাত পা ছিলে যায়। ছয়মাস পর সেই দুর্ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করে ২২ জন সহ অজ্ঞাতনামা আরো ৮/১০ কে আসামি করে লালমনিরহাটের আমলী আদালতে মামলা করেছেন মোঃ আব্দুস সামাদ নামের একজন ব্যক্তি।
এলাকাবাসী আরও জানান, এখানে কোন মারামারির ঘটনা ঘটেনি। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় তারা আহত হয়ে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে লোকজনকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে।

স্থানীয় চিকিৎসক ডাঃ আঃ লতিফ জানান, মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত তিনজনকে আমি নিজেই প্রাথমিক চিকিৎসা দেই। আমার সঙ্গে প্রদীপ নামের আরেকজন স্থানীয় চিকিৎসকও চিকিৎসা দিয়ে রংপুর হাসপাতালে রেফার করি।

এ মামলার স্বাক্ষী মোতালেবের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, আমি মামলার বিষয়ে কিছু জানতাম না। বাদি আঃ সামাদ আমাকে স্বাক্ষী করেছে।
মামলার বাদী আঃ সামাদের সাথে মিথ্যা মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, ওরা আমাদের নামে মামলা করার কারণে আমরাও কাউন্টার মামলা হিসেবে কোর্টে মামলা দায়ের করেছি।

ভেলাগুড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ মহির উদ্দিন জানান, আনুমানিক ৬/৭ মাস আগে এখানে একটি মোটরসাইকেল এক্সিডেন্ট হয়েছিল। এই এলাকার লোকজন তাদের মাথায় পানি দিয়ে শুইয়ে রাখে। এরপর কাশিমবাজার থেকে ডাঃ লতিফকে ডেকে এনে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়। তারা অজ্ঞান অবস্থায় থাকার কারণে মাইক্রোবাস দিয়ে রংপুর পাঠানো হয়।
২০/২২ দিন আগে জানতে পারলাম ঐ ঘটনাটি মারামারির ঘটনা সাজিয়ে ২২ জনের নামে একটি মিথ্যা মামলা দিয়েছে। আমি নিজেও খোঁজ নিয়ে দেখেছি এখানে কোন মারামারির ঘটনা ঘটেনি।