বেঁচে থেকেও নির্বাচন অফিসের তথ্য মতে স্কুল শিক্ষক মৃত

প্রকাশিত: ২:৩৭ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২১

মাসুদ রানা রাশেদ: লালমনিরহাট জেলার লালমনিরহাট সদর উপজেলার মোগলহাট ইউনিয়নের কাকেয়া টেপা গ্রামের লক্ষ্মীকান্ত রায়। তিনি আদিতমারী উপজেলার সাপ্টিবাড়ী ইউনিয়নের বালাপুকুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক। করোনার টিকা নিবন্ধনের সময় জাতীয় পরিচয়পত্র অকার্যকর দেখালে তিনি লালমনিরহাট সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে যান। সেখান থেকে তাঁকে জানানো হয়, ২০১৪ সালের ৩ জুন তিনি মারা গেছেন। তাই তালিকা থেকে তাঁর নামও বাদ দেওয়া হয়েছে।

লালমনিরহাট সদর নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় জানিয়েছে, স্থানীয় মন মোহন রায় নামের এক ব্যক্তি ২০১৫ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর লক্ষ্মীকান্ত রায়ের ভোটার আইডি নম্বর দিয়ে তাঁর নাম ভোটার তালিকা থেকে বাদ দেওয়ার আবেদন করেন। আবেদনে মন মোহন নিজেকে লক্ষ্মীকান্ত রায়ের ভাই উল্লেখ করেন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে স্থানীয় এক স্কুল শিক্ষকের মাধ্যমে তথ্য যাচাই করে নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়। যাচাইপত্রে স্বাক্ষর আছে মোগলহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিবেরও। তৎকালীন লালমনিরহাট সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ আফতাব উজ্জামানের অনুমোদনে তালিকা থেকে লক্ষ্মীকান্ত রায়ের নাম বাদ দেওয়া হয়। আফতাব উজ্জামান এখন নীলফামারী সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা।

লক্ষ্মীকান্ত রায় পেশায় স্কুল শিক্ষক। করোনার টিকার নিবন্ধন করবেন। গেছেন স্থানীয় কম্পিউটারের দোকানে। নিবন্ধন নিচ্ছে না। ইন্টারনেট সমস্যা? গেলেন আরেক দোকানে। হলো না। আরও দু-এক দোকানীর চেষ্টাও ব্যর্থ হলো। গেলেন লালমনিরহাট সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে। গিয়ে জানলেন, তিনি মারা গেছেন বেশ কয়েক বছর আগে! জানাজানি হয়েছে গত ২২ ফেব্রুয়ারি।

লক্ষ্মীকান্ত রায়ের অভিযোগ, মন মোহন রায়ের সঙ্গে জমি নিয়ে তাঁর বিরোধ আছে। মামলাও চলছে। এ কারণেই মন মোহন এমন কাজ করেছেন। মন মোহন তাঁর প্রতিবেশী।

তবে মন মোহন রায় সাংবাদিকদের বলেন, লক্ষ্মীকান্ত রায়ের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ থাকার কথা সত্য; কিন্তু তিনি ভোটার তালিকা থেকে লক্ষ্মীর নাম বাদ দেওয়ার আবেদন করেননি।

যে স্কুল শিক্ষক লক্ষ্মীকান্তের কথিত মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছেন, তাঁর নাম মোঃ মোমিনুর রহমান। তিনি লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট ইউনিয়নের ধাইরখাতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক।

মোমিনুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, কাকেয়া টেপা গ্রামের মন মোহন রায়ের মাধ্যমে অবহিত হয়ে লক্ষ্মীকান্ত রায়ের নাম ভোটার তালিকা থেকে কর্তনের সুপারিশ করেছি।

মোমিনুর রহমান সাংবাদিকদের আরও বলেন, তাঁরা একই গ্রামের, দুজনের বংশপদবিও এক। তাই মন মোহনের কথা বিশ্বাস করেছি।

আফতাব উজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, নাম কর্তনের আবেদনে সবার শেষে রেজিস্ট্রেশন অফিসার হিসেবে আমাকে স্বাক্ষর করতে হয়। যিনি নাম বাদ দেওয়ার আবেদন করেছেন, যিনি তথ্য সংগ্রহ করেছেন, যাচাই করেছেন, তাঁরা ভুল তথ্য দিলে অফিসে বসে আমার পক্ষে তা ধরা কঠিন।

লক্ষ্মীকান্ত রায় সাংবাদিকদের জানান, ২০১৬ সালে মোগলহাট ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন, ২০১৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবং ২০১৯ সালে লালমনিরহাট সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোট দিতে পারেননি তিনি। তখন মনে করেছিলেন, ভুল করে হয়তো কেন্দ্রের ভোটার তালিকায় তাঁর নাম আসেনি।

লালমনিরহাট সদর উপজেলার বর্তমান নির্বাচন কর্মকর্তা আজাদুল হেলাল সাংবাদিকদের বলেন, লক্ষ্মীকান্ত রায়সহ লালমনিরহাট সদর উপজেলার আটজন জীবিত ব্যক্তিকে মৃত্য দেখিয়ে ভোটার তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তবে বাকিদের পরিচয় তিনি প্রকাশ করেননি।

২২ ফেব্রুয়ারি ঘটনা জানার সঙ্গে সঙ্গেই বিষয়টি সমাধানের জন্য নির্বাচন কর্মকর্তা বরাবর আবেদন করেছেন লক্ষ্মীকান্ত রায়। নির্বাচন কর্মকর্তা বলেছেন, বিষয়টি সুরাহা করতে একটু সময় লাগবে।

লক্ষ্মীকান্ত রায় সাংবাদিকদের বললেন, উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এক মাসের মধ্যে সমাধান না করে দিলে তিনি ঘটনার সঙ্গে জড়িত সবার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করবেন।