বাদল আশরাফ এর কবিতা “চিরায়ত বাংলার রূপকথা”

প্রকাশিত: ১০:৪৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২, ২০২২

চিরায়ত বাংলার রূপকথা
বাদল আশরাফ

একালের এক রাণী
একদিন তার রাজাকে বললেন-
আমায় একটুকরো নিরিবিলি গ্রাম দাও
ছায়াঘেরা আর পাখির কূজনে মুখরিত!

আমায় একটি মেঠো পথ দাও
গ্রীষ্মের ধুলোয় ধুসরিত
বর্ষায় দারুন কাদা আর জলে একাকার!

আমায় স্নিগ্ধতা ভরা একটি নদী দাও
আমি ডিঙি বেয়ে কাশবন ছুঁয়ে ছুঁয়ে
শাড়ির আঁচলে বাঁধব বিকেলের ঘ্রাণ
আলতা পায়ে জল ছুঁয়ে জল রাঙাবো!

আমায় মায়া ভরা একটি কুটির দাও
যেখানে থাকবে ছবির মতন কুড়েঘর
নিকানো উঠোন
দেহলির ছায়ায় প্রশস্ত মাচান….
তুমি অলস দুপুরে ছেলে বুড়ো সব মিলে
দোতারার সুরে সুরে
শুনবে গায়েনের হৃদয় ছোঁয়া মরমী গান!

আমায় চৈত্রের একটি বারুনী মেলা দাও
যেখানে পদ্মপাতা ভরে কিনবো বাতাসা
নকুলদানা, খই-নাড়ু
কিনবো চিরুনি-আলতা, খেলার পুতুল
কাঠের গহনা, বাঁশি আর মাটির পিদিম!

আমায় একটি গরুর গাড়ি দিও
তুমি হবে সেই গাড়ির বন্ধু গাড়িয়াল,
মেলা শেষে
মেঠোপথের দোলনায় দুলে দুলে
ফিরে আসবো আমাদের শান্তির নীড়ে!

রাণীর কথা শুনে রাজা হেসে বললেন-
শোনো রাণী,
এই গ্রাম-মেঠোপথ-নদী, এই কুড়েঘর
গায়েনের গান, বারুনী মেলা
পদ্মপুকুর, পানকৌড়ির জলকেলি
জোড়া বট, বাঁশের সাঁকো
গন্ধকামিনী আর জোনাকির আলো
সবকিছু এই চিরায়ত বাংলার রূপকথা!