অনলাইন ডেস্ক।

সু চি কে সহযোগিতায় ভারত চীন ও রাশিয়া

প্রকাশিত: ৪:৩৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১১, ২০১৯
সুচির সমর্থনে বিলবোর্ড

অং সাং সুচি ও নরেন্দ্র মোদী


রোহিঙ্গাদের উপর গণহত্যার জন্য মিয়ানমারের বিরুদ্ধে ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিসে যে বিচার হচ্ছে, এর প্রেক্ষিতে মিয়ানমারের শহরগুলোতে সু চি এবং তার জেনারেলদের পক্ষে এমন অনেক বিল শোভা পাচ্ছে। প্রথম ছবিটা তেমনি একটা বিল বোর্ডের ছবি। মিয়ানমার প্রশাসন জানাচ্ছে যে, তারা এবং তাদের জেনারেলরা ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিস-এ অনুষ্ঠিত বিচারে সু চি’র পক্ষেই আছে। অর্থাৎ এটা নিশ্চিত যে, সু চি’র সম্মতিতেই মিয়ানমার সেনাবাহিনী এবং উগ্র বৌদ্ধরা রোহিঙ্গাদের উপর গণহত্যা-ধর্ষণের মতো মানবতাবিরোধী অপরাধগুলো করেছিল। আজ সু চি মিয়ানমারের উপর উত্থাপিত অভিযোগের জবাব দিচ্ছে। বিশ্লেষকরা বলে থাকেন যে, মিয়ানমার সেনাবাহিনী এবং উগ্র বৌদ্ধরা চীনের প্রশ্রয়ে এসব অপকর্মগুলো করেছে। দ্বিতীয় ছবিতে গুজরাটের কসাই নরেন্দ্র মোদী সু চি’র সাথে করমর্দনরত। ২০১৭ সালের পঁচিশে আগস্ট রোহিঙ্গাদের উপর গণহত্যা শুরু হলে বিশ্বব্যাপী মিয়ানমার সেনাবাহিনী এবং সু চি’র সমালোচনা শুরু হয় এবং গণহত্যা বন্ধে পৃথিব্যাপী জনমত শুরু হতে থাকে। ঠিক সে সময় (পাঁচ সেপ্টেম্বর, ২০১৭) গুজরাটের কসাই নরেন্দ্র মোদী রাষ্ট্রীয় সফরের নামে মিয়ানমারে গিয়ে বলে যে, রাখাইনে ‘জঙ্গি সহিংসতা’ রুখতে তার সরকার সর্বতোভাবে মিয়ানমার সরকারকে সাহায্য করবে। অর্থাৎ গুজরাটের কসাই রাখাইনের কসাই সু চি কে গণহত্যা চালিয়ে যেতে পরামর্শ দেয়। যুক্তি হিসেবে গুজরাটের কসাই বলে যে, রাখাইনের সিটওয়ে বন্দরের কালাদান প্রকল্পে নাকি তাদের স্বার্থ আছে আর এ জন্যেই তার এ অবস্থান। কিন্তু গুজরাটের গণহত্যা তো সে কথা বলেনা। সুতরাং, রোহিঙ্গাদের উপর গণহত্যা-নির্যাতন-ধর্ষণ ইত্যাদির জন্য সু চি এবং তার জেনেরালদের পাশাপাশি গুজরাটের কসাইরও বিচার হওয়া উচিত বলে মনে করি।