মায়ের সামনে ছেলেকে অমানবিক নির্যাতন

প্রকাশিত: ১১:৪৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৯

কুমিল্লায় যুবকের হাত-পা বেঁধে মায়ের সামনে অমানুষিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে এক গ্রাম্য মাতাব্বরের বিরুদ্ধে। নির্যাতনের ভিডিও ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়েছে। কুমিল্লা মুরাদনগর উপজেলার দারোরা ইউনিয়নের কাজিয়াতল গ্রামের পূর্বপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

নির্যাতনের শিকার যুবক কাজিয়াতল গ্রামের রাখাল চন্দ্রের ছেলে রাজু চন্দ্র। অভিযুক্ত মাতাব্বর আবু তাহের দারোরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এবং একই ইউনিয়নের ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের বর্তমান আমির। তিনি দুই দলেরই ইউনিয়ন কমিটির পদে রয়েছেন।

মাতাব্বর আবু তাহেরকে আসামি করে বৃহস্পতিবার নির্যাতনের শিকার রাজু চন্দ্রের বড় ভাই সজল চন্দ্র বিশ্বাস মামলা করেছেন।

বুধবার বিকালে কোন কারণ ছাড়াই হাত-পা বেঁধে ওই যুবককে অমানুষিকভাবে নির্যাতন করেন মাতাব্বর আবু তাহের। বাধায় কাজ না হওয়ায় নীরব প্রতিবাদে সেই নির্যাতনের দৃশ্য সামনা-সামনি দাঁড়িয়ে কাতর হয়ে দেখছেন মা। ওই ঘটনাটি উপস্থিত কেউ মোবাইলে ধারণ করে তা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়। একদিনের মধ্যে নির্যাতনের ভিডিওটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে পড়ে।

ওই ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওতে দেখা যায়, জামা-কাপড় খুলে যুবকের হাত পা বেঁধে প্রচণ্ড শীতের মধ্য মাটিতে ফেলে রাখা হয়েছে। পা দিয়ে মুখে ও বুকে লাথি মেরে ছুড়ে ফেলে অজ্ঞান করা হচ্ছে। এরপর আহত ও ক্রন্দনরত যুবকটিকে টানা কয়েক দফা লাথি মারতে থাকেন ওই মাতাব্বর।

ভাই সজল চন্দ্র বিশ্বাস জানান, ভাইয়ের ওপর এমন অমানবিক আচরণের বিচার চেয়ে আমরা এলাকার অন্যান্য সর্দার ও মাতাব্বরদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে এখন ক্লান্ত প্রায়। মাতাব্বর আবু তাহেরের বিচার চেয়ে আমি মুরাদনগর থানায় মামলা করেছি।

মুরাদনগর ইউনিয়নের দারোরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহাজাহান (বিএসসি) বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া নির্যাতনের ভিডিওটি দেখেছি। অভিযুক্ত ওই মাতাব্বর যুবকের মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে পা দিয়ে আঘাত করে অমানুষিকতার পরিচয় দিয়েছেন। আমার বিশ্বাস প্রশাসন বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখবেন।

মুরাদনগর থানার ওসি একেএম মনজুর আলম বলেন, যুবককে নির্যাতনের ঘটনায় অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে। আসামি পলাতক রয়েছে। পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করতে মাঠে রয়েছে।